ইন্দোনেশিয়ার ‘ভয়েস অব বেসপ্রট’: নারীর ক্ষমতায়নের জন্য গান করেন যারা


ইউএনভি ডেস্ক:

মাথায় হিজাব আর পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত লম্বা পোশাক পরে দাপটে গিটার আর ড্রামস বাজিয়ে গান গেয়ে চলেন ইন্দোনেশিয়ার তিন তরুণী। ‘ভয়েস অব বেসপ্রট’ নামের এই ব্যন্ড দল আগামীতে পারফর্ম করবে ইংল্যান্ডে।রয়টার্স জানিয়েছে, ইংল্যান্ডের গ্লাস্টনবারি উৎসবে ‘ভয়েস অব বেসপ্রট’ পারফর্ম করবে আগামী শুক্রবার।

ইংল্যান্ডের কনসার্ট নিয়ে দলের সদস্যরা কিছুটা চিন্তিত। কারণ এখন পর্যন্ত যত মঞ্চে তারা পারফর্ম করেছেন, তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড়। সেখানে আরো পারফর্ম করবে বিশ্বখ্যাত ব্যান্ড কোল্ডপ্লে এবং কানাডিয়ান শিল্পী শানিয়া টোয়াইনের মত তারকারা।

ইন্দোনেশিয়ার এই ত্রয়ী কেবল গানই করেন তা নয়, প্রচলিত ধ্যান-ধারণা ভাঙার চেষ্টায় তারা নেমেছেন সংগীত নিয়ে। তারা প্রমাণ করতে চান, মুসলিম নারীরা হিজাব পরেও মেটাল বাজাতে পারেন।

দলের ভোকাল বিদি রাহমাওয়াতি (২৩) এবং ফিরদা মারসিয়া কুর্নিয়া (২৪); ড্রাম বাজান ইইউএস সিতি আইশাহ (২৪)।‘ভয়েস অব বেসপ্রট’ অর্থ কোলাহল। সম্প্রতি ব্রিটেনের ‘নিউ মিউজিক্যাল এক্সপ্রেস’ এর প্রচ্ছদ তৈরি হয়েছে তাদের নিয়ে।

বিদি রয়টার্সকে বলেন, “আমরা কেবল ‘ভয়েস অব বেসপ্রট’ নয়, ইংল্যান্ডের কনসার্টে নিজ দেশের প্রতিনিধিত্বও করছি।”গিটারিস্ট ও ভোকালিস্ট কুর্নিয়া বলেন, “নারীরা দুর্বল, এবং ঢালাওভাবে মুসলামারা জঙ্গি-এসব ধারণাকে চ্যালেঞ্জ করে আমরা গান করি।”

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মুসলিমপ্রধান দেশ ইন্দোনেশিয়া, যেখানে ৯০% মানুষ মুসলিম, সেই দেশে তিন নারী মিলে এই ব্যান্ড গড়ে তোলেন ২০১৪ সালে। তাদের পরিচয়ের শুরু ইসলামিক স্কুলে। ছোট বেলায় ইন্দোনেশিয়ান পপ এবং ইসলামিক সংগীত করতেন।

কুর্নিয়া বলেন, “আমাদের এই ব্যান্ড নারীর ক্ষমতায়নের জন্য গান করে।”দলের এই সদস্য বলেন, মেটালের প্রতি তাদের অনুরাগ জন্মে যুক্তরাষ্ট্রের সিস্টেম অব এ ডাউন নামের ব্যান্ডটির ‘টক্সিসিটি’ অ্যালবাম শোনার পরে। স্কুলের গাইডেন্স কাউন্সিলর তাদের মেটালের সঙ্গে প্রথম পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন।

তবে মেটাল শিখতে চ্যালেঞ্জ কম ছিল না। বিদি বলেন, “আমাদের গ্রামে মেটাল মানেই শয়তানের কাজ। এটা মেয়েদের জন্য নয়, বিশেষ করে হিজাব পরা নারীদের।

“একবার আমার পরিবার চেয়েছিল, ইসলামি আচারের মাধ্যমে এক ধরনের চিকিৎসা করিয়ে আমার মেটাল সংগীতের ভূত দূর করতে। দল গড়ার পর শুরুতে মনে হত আমাদের কোনো বাড়িঘর বা ঠিকানা নেই, যেন আমরা অপরাধী। আমেরিকার শ্রোতারা এক সময় জঙ্গি বলেছে আমাদের।”

দলের সদস্যরা বলেছেন, গ্লাস্টনবারির কনসার্টের পর তারা ‘মাইটি আইল্যান্ড’ নামের নতুন অ্যালবাম নিয়ে কাজ শুরু করবেন।

এই অ্যালবামের গানগুলো ইন্দোনেশিয়ার দুর্নীতি নিয়ে কথা বলবে জানিয়ে কুর্নিয়া বলেন, “নিজেদের গ্রামের উঠতি মিউজিশিয়ানদের জন্য একটি কমিউনিটি গড়তে তুলতে চাই আমরা। ”কুর্নিয়ার কথায়, “আমরা আমাদের কমিউনিটির ক্ষমতায়ন চাই।


শর্টলিংকঃ