চোরাচালানরোধে রাজশাহী সীমান্তজুড়ে বিজিবি’র কড়া নজরদারি

  • 206
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহী সীমান্ত দিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে ফেনসিডিল পাচার বেড়েছে। তাই ফেনসিডিলসহ সব ধরনের পণ্য চোরাচালান রোধে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি কড়া নজরদারি শুরু করেছে। বিজিবি সদস্যরা দিনরাত কাজ করে চলেছে। ফলে বেড়েছে নিয়মিত টহলও। বিজিবি’র ১ ব্যাটেলিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ এ তথ্য জানান। 

রোববার দুপুরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি বলেন, রাজশাহীর বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে রয়েছে ভারতীয় সীমান্ত। যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ নদী পথ। চোরাকারবারীরা এই রুটে মাদক চোরাচালানে নিত্যনতুন কৌশল অবলম্বন করছে। তাদের সাথে পাল্লা দিয়ে বিজিবি নিজেদের বিদ্যমান প্রযুক্তি ও সোর্সকে কাজে লাগিয়ে মাদকের সেই চোরাচালানগুলো উদ্ধার করছে। ফলাফল রাজশাহীর বিস্তীর্ণ সীমান্তের কোন না কোন রুটে প্রতিদিন উদ্ধার হচ্ছে বিপুল সংখ্যক মাদকের চালান।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) রাজশাহী ব্যাটালিয়ান-১ এর দেয়া তথ্য মতে, ২০১৯ এর গত আট মাসে প্রায় দেড় কোটি টাকা সমমূল্যের মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে তারা।এর মধ্যে রয়েছে ভারতীয় ফেন্সিডিল ২১ হাজার ১৫৪ বোতল, ইয়াবা আট হাজার ২৭৬পিস, হেরোইন ৭৪৩গ্রাম, গাঁজা ৬৩ কেজি, ভারতীয় মদ ৩২৪ বোতল ও গ্যালিসিক্স ইঞ্জেকশন ১১শ ২০ পিস।

জানুয়ারি থেকে ২৫ অগস্ট পর্যন্ত স্থানীয় বিজিবি বাহিনীর দ্বারা উদ্ধার হওয়া এই মাদকগুলো খুব শিঘ্রই জনসম্মুখে ধ্বংস করা হবে বলে জানিয়েছেন ১ ব্যাটেলিয়নের পরিচালক।

এদিকে গত আট মাসে বিজিবির সহযোগীতায় রাজশাহী করিডোর দিয়ে বৈধ পথে ২২ হাজার ৭৭১টি গবাদিপশু আমদানি হয়েছে। যার মধ্য দিয়ে সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে এক কোটি ১৪লাখ ১৮ হাজার টাকা। আমদানি হওয়া পশুর মধ্যে রয়েছে পাঁচটি ঘোড়া, ১১ হাজার ৪৬৮টি গরু, ১১হাজার ২৯৮টি মহিষ।

মতবিনিময়কালে আরো উপস্থিত ছিলেন, ১ ব্যাটেলিয়নের অতিরিক্ত পরিচালক মেজর আসিফ বুলবুল।


  • 206
    Shares
শর্টলিংকঃ