মশা যেন ভোট খেয়ে না ফেলে: দুই মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী

  • 8
    Shares

ইউএনভি ডেস্ক:

এডিসসহ অন্যান্য মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে সুরক্ষা দিতে ঢাকার দুই মেয়রকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নবনির্বাচিত দুই মেয়রকে সতর্ক করে তিনি এও বলেছেন, ‘আপনারা নিয়ন্ত্রণে রাখবেন, মশা কিন্তু ভোট খেয়ে ফেলবে’।

মশা যেন ভোট খেয়ে না ফেলে: দুই মেয়রকে প্রধানমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার কার্যালয়ের শাপলা হলে ঢাকার দুই মেয়রকে শপথবাক্য পাঠ করানোর পর এসব কথা বলেন। এদিন প্রধানমন্ত্রীর কাছে শপথ নেন ঢাকা উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণের ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস। আর স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলামের কাছে শপথ নেন নবনির্বাচিত কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলররা।

মেয়র ও কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ঢাকায় যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা মনোযোগ দিয়ে কাজ করবেন। মশার উপদ্রব কমাবেন। ক্ষুদ্র প্রাণী হলেও মশা কিন্তু খুবই শক্তিশালী। মশাকে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন। তা না হলে মশা কিন্তু আপনার ভোট খেয়ে ফেলবে।

তিনি দুই মেয়রকে সবার জনপ্রতিনিধি হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান। বলেন, যারা ভোট দিয়েছে, আর যারা দেয়নি আপনারা সবার মেয়র। সবার জন্য কাজ করতে হবে।

‘একটা কথা মনে রাখবেন, কেউ আপনাকে ভোট দিয়েছে, আবার কেউ আপনাকে ভোট দেয়নি। যখন আপনি নির্বাচিত হয়েছেন, তখন মনে করবেন আপনি সবার প্রতিনিধি। এটিই গণতন্ত্রের নিয়ম। এটি মাথায় রেখে সবার উন্নয়নে আপনাকে কাজ করতে হবে। কেউ যেন বঞ্চিত না হয়’-যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, কাজের ক্ষেত্রে কোনোরকম দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না। এর পরও যদি কেউ দুর্নীতি করে, কোনো মুখ চাওয়া-চাওয়ি হবে না। সে যেই হোক, আমি কিন্তু কোনো ছাড় দেব না।

তিনি বলেন, স্থানীয় সরকারগুলোকে আমরা আরও শক্তিশালী করতে চাই। সেখানে পর্যাপ্ত পরিমাণ বাজেট দেয়া হচ্ছে। উন্নয়নের জন্য আমরা শুধু শহর নয়, গ্রামের উন্নয়ন করতে চাই। এ জন্য আমরা আলাদা আলাদা বাজেট ঘোষণা করছি।

জনসেবা ঠিকমতো করার নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ঢাকার উন্নয়নে মেগাপ্রকল্প গ্রহণ করেছি। সেই প্রকল্প আপনারা বাস্তবায়ন করবেন। এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে কেউ যেন দুর্নীতি না করেন। কারণ আমরা দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছি। কেউ যদি দুর্নীতি করেন তাকে কিন্তু আমি ছাড়ব না। জনগণ যেন আপনাদের সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়। মনে রাখবেন, জনগণ আপনাকে ভোট দিয়েছে সেবা করার জন্য।

উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে উত্তরে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম এবং দক্ষিণে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র নির্বাচিত হন।

আজ শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান হলেও আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে নির্বাচিত দুই মেয়র ও কাউন্সিলরদের দায়িত্ব পেতে মে মাসের মধ্য সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। বর্তমান যেসব কাউন্সিলর পুনর্র্নিবাচিত হয়েছেন, তাদের ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা নেই।

৯ মাস উত্তরের মেয়রের দায়িত্ব পালন করা আতিক আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে পদ ছেড়ে নির্বাচনে অংশ নেন। অন্যদিকে দক্ষিণে মেয়রের দায়িত্বে থাকা সাঈদ খোকনের এই নির্বাচনে অংশ নেয়া হয়নি। তার মেয়াদ রয়েছে মে মাস পর্যন্ত।

Print Friendly, PDF & Email

  • 8
    Shares
শর্টলিংকঃ