রাজশাহী নগরীর বাসাবাড়িতেও এডিস মশার লার্ভা

  • 1.1K
    Shares

 নিজস্ব প্রতিবেদক :

রাজশাহী মহানগরীর  ১০০টি স্থান পর্যবেক্ষণ করে মোট ১৪টিতে এডিসের লার্ভা পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জরিপ দল। এমন কি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাস ও হাসপাতাল এলাকাতেও লার্ভা পেয়েছেন কীটতত্ত্ববিদরা। তবে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

রাজশাহীতে ডেঙ্গুর বিস্তারের আশঙ্কার কথা রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য্য বুধবার বিকেলে ইউনিভার্সাল২৪নিউজকে জানান, এডিস মশা প্রতিরোধে কয়েকটি সুপারিশসহ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে চিঠি পাঠানো হবে। তবে এ নিয়ে কোনো আতঙ্ক নয়, বরং সচেতন ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। কেউ আক্রান্ত হলে দ্রুত হাসাপালে ভর্তি হওয়ারও পরামর্শ দিয়েছেন।

এর আগে এডিস মশার লার্ভা সনাক্তকরণের জন্য গত ১ আগস্ট তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক গোপেন্দ্র নাথ আচার্য্য এই কমিটি করে দেন। পরে ২ আগস্ট থেকে ৬ আগস্ট পর্যন্ত মহানগর এলাকার মোট ১শ’টি স্পটে অনুসন্ধান চালায় কীটতত্ত্ববিদদের নিয়ে গঠিত এই কমিটি। তারা এডিস মশার উপস্থিতি নিশ্চিত হতে এই কমিটি গত ২ আগস্ট থেকে মহানগরের প্রতিটি ওয়ার্ডের সন্দেহজনক স্পটগুলোয় যান।

এর মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ মোট ১৪টি স্পটে এডিসের লার্ভা পান। এ সময় তার নমুনা সংগ্রহ করে বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালকের কার্যালয়ের হ্যাচারীতে নিয়ে যান। সেখানে বর্তমানে তাদের বংশ বিস্তারের প্রক্রিয়াটি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

লার্ভা নিয়ে গবেষণা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের

নগরীর ১৪টি স্পটের মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২২ নম্বর ওয়ার্ডের সামনে পড়ে থাকা ভাঙা বেসিন ও ওয়ার্ডের পাঁচটি জায়গায় জমে থাকা পানিতে এডিস মশার লার্ভার উপস্থিতি মিলেছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষের বাসভবনের সামনে নারিকেলের মালায় জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে তারা এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে। একইভাবে মেডিকেল কলেজের ফালুগনী ছাত্রীনিবাসের সামনে আইসক্রিমের বক্সে জমে থাকা পানিতেও লার্ভা পাওয়া গেছে।

এছাড়া মহানগরীর উপশহর এলাকার রংধনু টাওয়ারের পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের ড্রামে জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে, একই এলাকার ২২৪ নম্বর বাড়ির পরিত্যক্ত পাত্রে, তিন নম্বর সেক্টরের ১৬৪ নম্বর বাড়ির ফুলের টবে ও পরিত্যক্ত কর্কশীটে ও ২০১ নম্বর বাড়ির ফুলের টবে, মহানগরীর আট নম্বর ওয়ার্ডের সিপাইপাড়া এলাকার মারুফের বাড়ির সামনের নারিকেলের মালায়ে, একই এলাকার আরেকটি বাড়িতে ফুলের টবে, চার নম্বর ওয়ার্ডের কেশবপুরের মাসুদ রানার বাড়ির প্লাস্টিকের পাত্রে, সেলিনা বেগমের বাড়ি ফুলের টবে ও মিলনের বাড়ির টায়ারে ও মাটির পাত্রে জমে থাকা পানিতে লার্ভা পাওয়া গেছে।

এছাড়া, শিরোইল এলাকা থেকে ভদ্রা পর্যন্ত রাস্তার পাশে হাঁটু সমান উুঁচ করে যেসব পাইপ পুঁতে রাখা হয়েছে; তার ভেতরে জমে থাকা পানিতে, একই এলাকার ব্যবসায়ী সেলিমের টায়ারের দোকানের টায়ারে, নাসির হোসেনের দোকানের ব্যাটারির সেলে জমে থাকা পানিতে ও শুকুর আলী নার্সারির মাটির পাত্রে জমে থাকা বৃষ্টির পানিতে এডিস মশার লার্ভা পেয়েছেন কীটতত্ত্ববিদরা

রাজশহী সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের জেলা কীটতত্ববিদ তায়েজুল ইসলামকে প্রধান করে ওই কমিটি গঠন করা হয়েছিল। কমিটির অপর দুই সদস্য ছিলেন- রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ের কীটতত্বীয় টেকনিশিয়ান আব্দুল বারী ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কীটতত্বীয় টেকনিশিয়ান উম্মে হাবিবা।


  • 1.1K
    Shares
শর্টলিংকঃ