যেভাবে বিকৃত করা হচ্ছে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের বক্তব্য!

  • 1
    Share

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালের বক্তব্যের একটি অংশকে পুঁজি করে বিতর্ক সৃষ্টিতে তৎপর হয়েছে দেশের বেশকিছু ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেইজসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সক্রিয় দেশবিরোধী কিছু কুচক্রী মহল। মূলত ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ককে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই তারা এ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে প্রতিয়মান হচ্ছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল

গত ১১ নভেম্বর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল লন্ডনে বাংলা বন্ডের অভিষেক অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন। ওই সফরে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে দেশের প্রথম ‘বাংলা টাকা বন্ড’ চালু হয়। লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে বন্ডকে তালিকাভুক্ত করার অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। ‘রিং দ্য বেল’ নামের অনুষ্ঠান উদ্বোধনকালে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জন্য এটি একটি ঐতিহাসিক দিন। ‘বাংলা বন্ড’ চালু বিশ্ব অর্থনীতিতে বাংলাদেশের একটি বড় পদক্ষেপ। এই বন্ড চালুর মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবাসী বিনিয়োগ আরো সহজতর হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, আইএফসির এশিয়া এবং প্যাসিফিক অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট নেনা স্টেলকোভিক, ব্রিটেনের বাংলাদেশ হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনীম, বিডার চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মনোয়ার আহমেদ এবং আইএফসির ডিরেক্টররা।

আ হ ম মোস্তফা কামালের দেয়া বক্তব্যের ৩৭ সেকেন্ডের খণ্ডাংশ বিতর্কিত করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, মন্ত্রী বাংলাদেশকে ভারতের অংশ হিসেবে বিবেচনা করেছেন। কিন্তু প্রকৃত বক্তব্য তা নয়। কেননা, লন্ডনের ওই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ঐতিহ্যগত মূল্য তুলে ধরতে তিনি বাংলাদেশ একসময় ভারতের অংশ ছিলো বলে উল্লেখ করেছেন। অর্থাৎ মন্ত্রী তার বক্তব্যে বাংলাদেশকেও বিশ্বের চোখে বিশেষ মর্যাদাপূর্ণ করে তুলে ধরতে চেয়েছেন।

স্বার্থান্বেষী মহলের দাবি, লন্ডনের অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী “বাংলাদেশ ভারতেরই অংশ” এই কথাটি বলেছেন। প্রকৃতপক্ষে ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিতে মন্ত্রী বলেছেন, “At that time we, the Bangladeshis were also part of India. So we can also claim that we were, once upon a time we were a rich country. Country claim like that. We were a part of India. Is that true? So India was a number one country, can`t we say that we were also number one country?”

বাক্যগুলোতে বেশ কয়েকবার ইংরেজি were (ওয়্যার) শব্দটি এসেছে। এর মধ্যে প্রথম বাক্যে খুবই স্পষ্ট শোনা যায় মন্ত্রী were এর উচ্চারণ ‘ওয়্যার’ করছেন। প্রথম বাক্যের প্রথম তিনটি শব্দ (At that time) থেকেই স্পষ্ট মন্ত্রী বর্তমানের কথা বলছেন না। তিনি অতীতের কোনো এক সময়ের কথা বলছেন। আবার ওই বাক্যটিতেই were বলা শব্দটি তার মুখ থেকে স্পষ্ট শোনা যাচ্ছে ভিডিওতে।

দ্বিতীয় বাক্যে থাকা ‘once upon a time’ শব্দগুলি থেকে আবারও স্পষ্ট মন্ত্রী বেশ দূর অতীতের কোনো এক সময়ে আমাদের দেশ যে ধনী একটি দেশ ছিল তা বলছেন। প্রথম দুটি বাক্যের ধারাবাহিকতায় মন্ত্রী চতুর্থ বাক্যে এসে অতীতের কথাই বলেছেন এভাবে ‘We were a part of India. Is that true?’

বাংলায় শেষের চারটি বাক্য অনুবাদ করলে দাঁড়ায়– “আমরা ভারতের অংশ ছিলাম, এটা সত্যি কিনা? ভারত ছিল (বিশ্বের) এক নম্বর (ধনী) দেশ, তাহলে কি আমরাও বলতে পারি না যে, আমরাও (বাংলাদেশ) এক নম্বর (ধনী) দেশ ছিলাম?”

বর্তমানের বাংলাদেশ ভূখণ্ডটি এক সময় ‘বিশ্বের এক নম্বর ধনী দেশ’ ছিল– এই কথাটি দর্শকদের কাছে প্রতিষ্ঠিত করতে মন্ত্রী ওই সময়ে (‘once upon a time’) বাংলাদেশ ভারতের অংশ ছিল কিনা তা প্রশ্ন করে জানতে চেয়েছেন (প্রকৃতপক্ষে এই প্রশ্নটি ‘প্রশ্ন’ নয়, বরং ঐতিহাসিক বাস্তবতাকে জোর দিয়ে তুলে ধরতে প্রশ্ন আকারে দর্শকদের সামনে নিজের বক্তব্য ছুঁড়ে দেয়া)। এ থেকে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে, একটি কুচক্রী মহল ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ককে বিতর্কিত করতে এমন খণ্ড বক্তব্যকে বিশেষ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করছেন। যা প্রতিহত করা সকলেরই দায়িত্ব।


  • 1
    Share
শর্টলিংকঃ