ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কিছু অজানা তথ্য

  • 67
    Shares

১৯২১ সালের ১ জুলাই যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশের সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। জুলাই মাসের প্রথম দিনটি তাই ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। ১৯১৭ সালের মার্চ মাসে ইম্পেরিয়াল লেজিসলেটিভ কাউন্সিলে সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী সরকারের কাছে অবিলম্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিল পেশের আহ্বান জানান। ১৯২০ সালের ২৩ মার্চ গভর্নর জেনারেল এ বিলে সম্মতি দেন। এ আইনটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠার ভিত্তি। এ আইন বাস্তবায়নের ফলেই ১৯২১ সালের ১ জুলাই প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই দিনে ইউনিভার্সাল২৪নিউজ এর পাঠকদের জন্য থাকছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে জানা অজানা কিছু তথ্য।

১.
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৬০০ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হলেও বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টি মাত্র ২০০ একর জমি জুড়ে আছে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছিল।

২.
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন ঢাকা কলেজ ও জগন্নাথ কলেজের ডিগ্রিতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা। এমনকি শিক্ষক, লাইব্রেরি এবং অন্যান্য উপকরণ দিয়ে সহায়তার কারণে কৃতজ্ঞতাস্বরূপ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কলেজ দুটির নামে নিজেদের দুটি হলের নামকরণ করে—জগন্নাথ হল, ঢাকা হল (যা বর্তমানে ড.মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ হল)।

৩.
ঢাবিতে তৎকালীন সময়ে নারীদের শিক্ষার ব্যবস্থা ছিল না। ১৯২১ সালে লীলা নাগের মেধা ও আকাঙ্ক্ষার কারণে তৎকালীন ভাইস চ্যান্সেলর ড. হার্টস তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার বিশেষ অনুমতি দেন। তিনি ইংরেজিতে এম.এ ক্লাসে ভর্তি হন। লীলা নাগ ছিলেন কলকাতার বিথুন কলেজ থেকে ইংরেজিতে বি.এ পাশ করা শিক্ষার্থী। নারীদের মধ্যে পরীক্ষার ফলাফলে প্রথম হওয়ায় তিনি পদ্মভূষণ স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন। লীলা নাগের পৈতৃক-নিবাস সিলেটে। জন্ম হয়েছিল আসামে। লীলা নাগ পরবর্তীতে বিপ্লবী অমিত রায়কে বিয়ে করেন এবং নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর সহকারী হিসেবে কাজ করেন।

৪.
বঙ্গভঙ্গ রদের ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

৫.
স্বাধীনতার পর—১৯৬১ সালে স্বৈরাচারী শাসক আইয়ুব খানের অর্ডিন্যান্স বাতিল করে জাতীয় সংসদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডিন্যান্স ১৯৭৩ পাশ হলে এ অর্ডিন্যান্স দ্বারা এখন পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়টি পরিচালিত হয়ে আসছে।

৬.
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারে রয়েছে ছয় লাখ আশি হাজারেরও বেশি বই।

৭.
ঢাবির মধুর ক্যান্টিনে ১৯০৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মুসলিম লীগ। মিথ আছে যে মধুর ক্যান্টিন ছিল বাগান বাড়ির নাচঘর।

৮.
১৯৭১ সালে পাক বাহিনীর নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন মধুদা, তাঁর স্ত্রী, তাঁর ছেলে ও নবপুত্রবধূ।

৯.
ঊনিশ শতকের শুরুতে বিক্রমপুরের শ্রীনগরের জমিদারের সাথে মধুদা’র দাদা নকরীচন্দ্রের ব্যবসায়িক সম্পর্ক তৈরি হয়। পরবর্তী সময়ে ঢাবি প্রতিষ্ঠিত হলে জমিদারী ব্যবসায় ঢাবি এলাকার দায়িত্ব পান নকরীচন্দ্র। নকরীচন্দ্রের মৃত্যুর পর মধুদা’র পিতা আদিত্য চন্দ্র মধুর ক্যান্টিন দেখাশোনার দায়িত্ব পান। ১৯৩৯ সালে পক্ষাঘাতে আদিত্য চন্দ্রের মৃত্যুর পর মধুদা ব্যবসা দেখার দায়িত্ব পান। এভাবেই বংশ পরম্পরায় চলে আসছে ঢাবির মধুর ক্যান্টিনের ব্যবসা।

১০.
১৯৭০ সালের ৮ মার্চ থেকে ১৯৯৯ সালের ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যবর্তী সময়ে ঢাবিতে কোনো সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়নি। স্বাধীনতার পর ঢাবির প্রথম সমাবর্তন ছিল ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট। যা ছিল ৪০ তম সমাবর্তন। যেখানে উপস্থিত থাকার কথা ছিল রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরবেলা জাতির পিতা নৃশংসভাবে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়ায় সে সমাবর্তন আর অনুষ্ঠিত হয়নি। এরপর ৪০তম সমাবর্তন হয় ১৯৯৯ সালের ১৮ ডিসেম্বর।

১১.
কিংবদন্তী শিক্ষক ড. আহমদ শরীফ তাঁর চাচা আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদের সংগৃহীত পুঁথি সম্ভার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে বিনামূল্যে দেওয়ার শর্তে ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকুরি পান। তাঁর পোস্ট ছিল সহকারী গবেষক। মূলত পুঁথি নিয়ে গবেষণার জন্যই তাকে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরবর্তীকালে তিনি বাঙলা বিভাগের অধ্যাপক হয়েছিলেন।

১২.
স্বাধীনতা পরবর্তীকালে ঢাবি থেকে বের হওয়া বেশিরভাগ কবির স্নাতকে লেখাপড়া ছিল অসম্পূর্ণ। তাঁরা কেউ ঢাবি থেকে কোনো সনদপত্র পাননি যেহেতু স্নাতক সম্পূর্ণ করেননি। যেমন : শামসুর রাহমান, আবুল হাসান, সৈয়দ শামসুল হক, নির্মলেন্দু গুণ, রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, আহমদ ছফা।

১৩.
বুদ্ধিজীবী, লেখক আহমদ ছফা ঢাবির শিক্ষক হওয়ার জন্য চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে নিয়োগ দেয়নি।

১৪.
বাঙলাদেশের সব জাতীয় আন্দোলনে ঢাবির শিক্ষার্থীদের অবদান সবচেয়ে বেশি। তবে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে ঢাবির শিক্ষার্থীরা নেতৃত্ব দিলেও ভাষা শহীদদের কেউ যেমন : সালাম, রফিক, জব্বার, শফিউর রহমান—ঢাবির শিক্ষার্থী ছিলেন না।

১৫.
ঢাকার নওয়াব পরিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে জমি দিয়েছিল বলে যে মিথটি চালু আছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সরকারি খাস জমিতে।

১৬.
রবি ঠাকুরের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় বিরোধিতার যে মিথ চালু আছে তার দালিলিক কোনো প্রমাণ নেই।  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ বলেছেন, “কেউ কেউ কোনো প্রমাণ উপস্থিত না করেই লিখিতভাবে জানাচ্ছেন যে, ১৯১২ খ্রিষ্টাব্দের ২৮ মার্চ কলকাতায় গড়ের মাঠে রবীন্দ্রনাথের সভাপতিত্বে এক বিরাট জনসভা হয়। ওরকম একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল বটে, কিন্তু তাতে রবীন্দ্রনাথের উপস্থিতি ছিল অসম্ভব, কেননা সেদিন তিনি কলকাতাতেই ছিলেন না। ১৯১২ সালের ১৯ মার্চ সিটি অব প্যারিস জাহাজযোগে রবীন্দ্রনাথের বিলাতযাত্রার কথা ছিল। তাঁর সফরসঙ্গী ডাক্তার দ্বিজেন্দ্রনাথ মিত্র জাহাজে উঠে পড়েছিলেন, কবির মালপত্রও তাতে তোলা হয়ে গিয়েছিল; কিন্তু আকস্মিকভাবে ওইদিন সকালে রবীন্দ্রনাথ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে মাদ্রাজ থেকে তাঁর মালপত্র ফিরিয়ে আনা হয়। কলকাতায় কয়েক দিন বিশ্রাম করে ২৪ মার্চ রবীন্দ্রনাথ শিলাইদহে চলে আসেন এবং ২৮ মার্চ থেকে ১২ এপ্রিলের মধ্যে সেখানে বসে ১৮টি গান ও কবিতা রচনা করেন।”


  • 67
    Shares
শর্টলিংকঃ