ইংল্যান্ড-ভারত পাতানো ম্যাচ, সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়

  • 45
    Shares

ইউএনভি ডেস্ক:

৩৮তম ম্যাচের আগে একমাত্র অপরাজেয় ছিল ভারতীয় দল। তবে সেই রেকর্ডটি আর ধরে রাখতে পারেননি তারা। গতকাল বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩১ রানে হেরেছে ভারত।

ক্রিকেটীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে এটা কেবলই একটা হার হলেও ভারতের এই হারেই হাজার প্রশ্ন উঠেছে। সমালোচনায় মেতেছে ক্রিকেটবিশ্ব।

বিশ্বসেরা ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে এমন ম্যাচ কীভাবে হেরে যায় ভারত সে সমালোচনার ঝড়ে বিধ্বস্ত সোশ্যাল মিডিয়া।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, শেষ পাঁচ ওভারে ধোনি ও কেদার যাদব যখন সিঙ্গেলস নিচ্ছিলেন তখন গ্যালারিতে বসা ভারতীয় সমর্থকরা হায় হায় করছিলেন।

সোশ্যাল মিডিয়াসহ ক্রিকেটবিশ্বে আপাতত একই জিকির-ম্যাচটি পাতানো ছিল না তো? খোদ ভারতীয়দের অনেকের মুখে সে সুর বেজেছে।  সমালোচনা করেছেন সৌরভ গাঙ্গুলী, সঞ্জয় মাঞ্জেরেকার, হার্ষা ভোগলের মতো ক্রিকেট বিশ্লেষকরাও।

যদিও ভারতের এই পরাজয়ে লাভ হয়েছে কেবল ইংল্যান্ডেরই। অন্যদিকে ক্ষতিগ্রস্থ হলো উপমহাদেশের তিন দেশ বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কা। লঙ্কানদের তো সেমির স্বপ্ন শেষই হয়ে গেছে বলা যায়।

কিন্তু বাংলাদেশ আর পাকিস্তানের সেমিতে ওঠার যে স্বপ্ন, তা বাস্তবে রূপ দেয়াটা অনেকটাই কঠিন হয়ে গেলো ইংল্যান্ডের এই জয়ে। ৮ ম্যাচ শেষে ইংলিশদের অর্জন ১০ পয়েন্ট। পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে আবারও তারা উঠে এলো চার নম্বরে।

অন্যদিকে ৭ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে বাংলাদেশ, ৮ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে পাকিস্তান। ১১ পয়েন্ট নিয়ে যৌথভাবে ভারত আর নিউজিল্যান্ড রয়েছে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানে।

কিন্তু ভারতের হারের ধরন দেখে রীতিমত উত্তাল হয়ে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া। যে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে গত ২৭টি বছর ভারতকে হারাতে পারে না, তারাই কি না গুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচটিতে পরাজিত হলো। ক্রিকেট সমর্থকদের প্রশ্ন, ভারত কি তবে ইচ্ছা করেই হেরেছে? তাদের ব্যাটিং স্টাইল এবং জিততে না চাওয়ার মানসিকতার কারণেই মূলতঃ এই প্রশ্ন তুলেছেন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা।

এবারের বিশ্বকাপে টানা জয়ে ফর্মের তুঙ্গেই ছিল ভারত, ছিল অপরাজেয়। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৩৮ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে বিরাট কোহলিদের ৩১ রানের পরাজয়ে হতাশ সমর্থকরা। ক্রিকেট সমর্থকদের অনেকেই বলছেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের মানসিকতা নিয়ে খেলেনি ভারত!

এদিকে ভারতের সাবেক ক্রিকেটার সঞ্জয় মাঞ্জেরেকার টুইটারে লিখেছেন, ভারতের জয়রথ থামানোর মতো যদি কোনো দল থাকে, সেটা ইংল্যান্ডই। তবে, শেষ কয়েক ওভারে ধোনির কার্যক্রম বিভ্রান্তিকর।

বিখ্যাত ধারাভাষ্যকার হার্ষা ভোগলে লিখেছেন, হতাশাব্যঞ্জক সমাপ্তি। এক বল-এক রানের পার্টনারশীপে খেলায় জেতা যায় না। পান্ডিয়া (হার্দিক পান্ডিয়া) থাকা পর্যন্ত (খেলা) উত্তেজনাপূর্ণ ছিল।

পাকিস্তানের সাবেক ফাস্ট বোলার শোয়েব আখতার লিখেছেন, ভারত আরও ভালো খেলতে পারত। প্রথম ১০ ওভারে আগ্রাসী চেষ্টা ও পরে পাঁচ উইকেট হাতে রেখে তারা চমক দেখাতে পারত।

সমালোচনার আগুনে সবচেয়ে বেশি পুড়ছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ফিনিশার বলে খ্যাত ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। কয়েকজন তো তিনিসহ গোটা টিম ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধেই ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ তুলেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই বলছেন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানকে কৌশলে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় করে দিতেই এমন বাজে ব্যাটিং করেছেন ধোনিরা।

ফরহাদ টিটু নামে একজন নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে লেখেন, এই রকম রকিং ব্যাটিং লাইন আপ নিয়ে ভারত প্রথম ছক্কা হাঁকিয়েছে শেষ ওভারে এসে। ৩৩৮ রানের টার্গেট তাড়া করতে নামা কোনো দল যখন শেষ ওভারে গিয়ে এটা করে….সেই দল জয়ের জন্য নেমেছিলো-তা বিশ্বাস করা যায়?

মাহবুব রহমান নামে একজন ফেসবুকে লেখেন, ভারতের ব্যাটিং দেখে মনে হয়েছে তাদের জেতার কোনো ইচ্ছাই ছিল না। আরও একটা পাতানো ম্যাচ!!!

সামাজিক মাধ্যমে আলোচনা হচ্ছে, আজ ১০ ওভার বল করে কোনো উইকেট পাননি চাহাল। শুধু উইকেটশূন্য থাকেননি, উদারহস্তে রানও দিয়েছেন ৮৮টি। বিশ্বকাপে তাঁর চেয়ে বেশি রান এক ম্যাচে ভারতের কেউ দেননি।

এদিকে ভারতের এমন হারে অবাক ভারতের জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যম জি নিউজ। ‘রান তাড়ার তাগিদ ছিল না ধোনির, পরাজয়ে ধাক্কা খেল পড়শিদের সেমিফাইনালের স্বপ্ন।’ ভারতের হারের পর এমন শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করে তারা।

সংবাদ মাধ্যমটি লিখেছে, ৩৩৮ রানের টার্গেট। শেষ ১০ ওভারে দরকার ১০৪। মানে ওভার পিছু প্রায় ১০। টি-২০ ক্রিকেটের যুগে এটা জলভাত। কিন্তু শেষ ১০ ওভারে জেতার আশাই ছেড়ে দিলেন মহেন্দ্র সিং। কমেন্ট্রিবক্সে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ভিভিএস লক্ষ্মণরাও ধোনির কৌশল বুঝে উঠতে পারলেন না। বলতে গেলে তখনই ইংল্যান্ডের সামনে আত্মসমর্পণ করে দিল টিম ইন্ডিয়া। ভারতের হারে কণ্টকাকীর্ণ হয়ে গেল বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার সেমিফাইনাল যাওয়ার রাস্তা।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ম্যাচের আগে থেকে ঘুরে বেড়াচ্ছিল, পাকিস্তানকে ছবক শেখাতে ইচ্ছে করে ম্যাচ হারবে ভারত। এমনকি দুই প্রাক্তন পাকিস্তানি ক্রিকেটারও এমন আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। কয়েকজন ভারতীয়ও এদিন মজা করে বিরাটদের পরাজয় দেখতে চাইছিলেন।

ক্রিকেটবোদ্ধারা অবশ্য মনে করছেন, ম্যাচের শুরু থেকেই অতিরিক্ত মন্থর ব্যাটিংয়ে শেষের দিকে চাপ বেড়ে গিয়েছে। ১০ ওভারে ১০৪ রান তোলা মুখের কথা নয়। আর টার্গেটে যখন পৌঁছনো সম্ভব নয়, তখন কৌশল বদলে ফেলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। রান তাড়া করতে গিয়ে দ্রুত উইকেট হারালে কমে যেত রান রেট। সে কারণেই দলকে তিনশো পার করিয়ে পাঁচ উইকেট হাতে রাখলেন প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক।


  • 45
    Shares
শর্টলিংকঃ