সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সাথে তরুণীর জন্মদিন উদযাপন

  • 95
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সময়ের বিবর্তনে জন্মদিন বা জন্ম উৎসব এখন সারা বিশ্বের মধ্যে একটি অন্যরকম উৎসবে পরিণত হয়েছে। জন্মদিন পালন আজকাল শুধু একটি নিছন মজাই নয়, এটি জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে। জন্মদিনকে কেন্দ্র করে মানুষ পারবারিক সামাজিক সেতুবন্ধনের দিকটিও ঠিক রাখার চেষ্টা করেন। একে কেন্দ্র করে পারিবারিক যোগাযোগও তৈরি হয়। যা ইতিবাচকও বটে। আবার দেখা যায় শ্রেণী বা বয়সভেদে জন্মদিন পালন, জন্ম উৎসব উদযাপন এখন অনেকটা প্রতিযোগিতাও বটে বা বিশেষ আয়োজনও বলা যেতে পারে।


সমাজ বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন, মানবিক চর্চা, নিজের সমাজের প্রতি খেয়াল না করে ব্যক্তি স্বাতন্ত্রতার দিকেই শুধু খেয়াল করা, বর্তমান র্ভাচুয়াল জগতে ব্যক্তি প্রচারণা, নিজের অবস্থানের জানান দেয়াসহ ইত্যাদি বিষয়গুলোর কারণে অনেকে প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়। আবার দেখা যায় সচেতন তরুণরা তার জন্মদিনটিতে অনেক সময় সামাজিক দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে দিনটি উৎযাপন করে থাকেন।

যেমন সম্প্রতি রাজশাহীর তরুণেরা সেই চর্চা শুরু করেছেন। মানবিক এবং মননশীলতার চর্চা এবং নিজ সমাজের অবহেলিত সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন তারা। রাজশাহীর সচেতন তরুণদের কাছে জন্মদিনটি শুধু নিছক ফাস্টফুডের দোকানে কেক কাঁটা আর নিজেরা বাহারী খাবার খাওয়ার প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হওয়া নয়। তারা মনে করেন, এই বিশেষ দিনটিতে সমাজের অবহেলিত বঞ্চিত মানুষের পাশে থেকে কাটানো বা ভালো কোন কাজ করাই অনেক বেশি মনের খোরাক জোগায়। একই সাথে পরিবারের সাথে কাটানো দরকার।


আজ বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজের ইংরেজি বিভাগের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোসা. আশিফা আবরী স্মরণীর জন্মদিন। এ তরুণী তার জন্মদিনে নিজের বন্ধুদের নিয়ে রাজশাহী মহানগরীর নমোভদ্রা বস্তির সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে সময় কাটান। প্রায় ৫০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে তারা আনন্দ আর মজায় মেতে উঠেন। শিশুদের সাথে নিয়ে জন্মদিনের কেক কাটেন। তাদের হাতে তুলে দেন চকলেট সহ নাস্তা।

জন্মদিনে নিজের অনুভুতির কথা বলতে গিয়ে স্মরণী বলেন, ‘আজকের দিনটি আমার জীবনের একটি অন্যরকম আনন্দের দিন। ইতিপূর্বে আমি এভাবে কখনোই আমার জন্মদিন পালন করি নি। আগামী দিনগুলো আমি এভাবেই সুবিধাবঞ্চিত ও অসহায় মানুষের পাশে থাকতে চাই। জন্মদিন সহ নিজের প্রতিটি বিশেষ মূহুর্তগুলো তাদের সাথে ভাগাভাগি করে নিতে চাই।’

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সাথে জন্মদিন পালনের সময় বারসিক রাজশাহী রিসোর্স সেন্টারের প্রোগ্রাম অফিসার মো. জাহিদ আলী, হিসাবরক্ষক উপেন রবিদাস, কর্মসূচি সহকারি তহুরা খাতুন লিলি, রাজশাহীর তরুণ সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাসের সভাপতি শামীউল আলীম শাওন অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও স্মরণীর বন্ধু রাজশাহী পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের কম্পিউটার টেকনোলজি বিভাগের ষষ্ঠ পর্বের শিক্ষার্থী সারজিদ ইসলাম ও হৃদয় হোসেন আহাদ, শাহমুখদম কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী উম্মে সুমাইয়া এবং আড়ানী ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহিল কাফি উপস্থিত ছিলেন।


  • 95
    Shares
শর্টলিংকঃ